‘হিন্দু নির্মাতাদের ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করব’

প্রথম সময় ডেস্ক: ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত নাটক ‘বিজয়া’। ধর্মান্তরকরণ এবং সাম্প্রদায়িকতা উসকে দেওয়ার অভিযোগ এনে এ নাটকের অভিনয়শিল্পী, নির্মাতা ও রচয়িতার বিরুদ্ধে লিটন কৃষ্ণ দাসের পক্ষে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন আইনজীবী সুমন কুমার রায়।

আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিষয়টি মীমাংসার দিকে যাওয়ার কথা ছিল প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির। কিন্তু ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের সিইও তাজুল ইসলামের এক বিবৃতি নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

ভিডিও বার্তায় তাজুল ইসলাম বলেন, ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ‘বিজয়া’ নাটকসহ এ প্রতিষ্ঠানের কোনো নাটকই দুর্গাপূজায় প্রচার করা হবে না। ভবিষ্যতে দুর্গাপূজাকেন্দ্রিক কোনো নাটক প্রতিষ্ঠানটি নির্মাণ করবে না। নিয়মিত নাটক নির্মাণের ক্ষেত্রে হিন্দু নির্মাতাদের সুযোগ দেওয়ার ব্যাপারে কঠোর সাবধানতা অবলম্বন করবেন বলেও জানান তিনি।

ভিডিওটি ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের কর্ণধার সালেহ উদ্দীন সোয়েব চৌধুরী ফেসবুকে পোস্ট করেছেন। এরপর থেকে বিষয়টি নিয়ে নতুন বিতর্ক শুরু হয়েছে। অসংখ্য মন্তব্য জমা হয়েছে কমেন্ট বক্সে।

বেশ কিছু প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন দুই পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি। এ অভিনেত্রী লিখেছেন: ‘দেশের শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কেন হিন্দু পরিচালককে সুযোগ দেবে না? নাটক বন্ধের সঙ্গে হিন্দু পরিচালকদের কী সম্পর্ক? এটা আমার কাছে ক্লিয়ার না!’

ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের অফিসে গিয়ে নাটকটি দেখার জন্য হিন্দু নেতাদের আহ্বান করেছিলেন জানিয়ে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘হিন্দু ধর্মের অনুসারীরা ‘বিজয়া’ নাটকটি না দেখে এবং এই নাটকের গল্প সম্পর্কে সামান্যতম ধারণা না পেয়েই অপপ্রচার চালাচ্ছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতাদের আমাদের অফিসে এসে নাটকটি দেখার আহ্বান জানিয়েছিলাম। নাটকটি দেখার পর এটি প্রচার করা যাবে কি যাবে না, সে বিষয়ে মতামত দেওয়ার অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের অনুরোধ অগ্রাহ্য করেছেন।’

‘বিজয়া’ নাটকটি পরিচালনা করেছেন আবু হায়াত মাহমুদ। এতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন ইরফান সাজ্জাদ ও তিশা। নাটকটির রচয়িতা সালেহ উদ্দীন সোয়েব চৌধুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *