ফায়ার সার্ভিসের ২০টি স্টেশন ও ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উদ্বোধন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফায়ার সার্ভিসের নতুন ২০টি স্টেশন এবং ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস উদ্বোধন করেছেন। আজ রবিবার গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে তিনি এগুলোর উদ্বোধন করেন।

এর ফলে দেশে মোট ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৫৬টি। রাজধানীর ফুলবাড়িয়াতে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এগুলোর উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনের আগে ফায়ার সার্ভিসকে আধুনিকায়নের চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, আগুনে জীবন ও জানমালের অনেক ক্ষতি হয়। আমাদের সরকার গঠনের আগে এত ফায়ার স্টেশন ছিল না। আমরা দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। মানুষের জীবন যেন নিরাপদ হয় সেভাবেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

ফায়ার সার্ভিসকে আধুনিক প্রযুক্তিতে দক্ষ করা হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯৯৯-এ ফোন দিলে যেকোনো ধরনের সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়। সম্প্রতি হিমছড়িতে একদল শিক্ষার্থী হারিয়ে যাওয়ার পর ৯৯৯-এ কল দিলে পুলিশ বিমানবাহিনীর সাহায্য নিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ থেকে বোঝা যায় আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করলে যেকোনো বিপদ থেকে মানুষকে উদ্ধার করা যায়। আমরা ফায়ার সার্ভিসকে সেভাবে গড়ে তুলব।

এ সময় ফায়ার সার্ভিসের জনবল বৃদ্ধি এবং তাদের প্রশিক্ষণের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, দেশে এখন ৪৩৬টি ফায়ার স্টেশন আছে, ২০টির মাধ্যমে মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৫৬টি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার স্টেশন নির্মাণে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

নতুন ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট সংক্রান্ত সেবা নাগরিকদের আরও কাছে চলে যাবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বর্তমানে দেশের ৬৪টি জেলায় ৭২টি পাসপোর্ট অফিস এবং ২৭টি ইমিগ্রেশন চেক পয়েন্ট রয়েছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম দেশ হিসেবে ই-পাসপোর্ট চালুর পর ই-ভিসা চালুর জন্যও কাজ করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান শামসুল হক টুকু, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহিদুজ্জামান, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন, কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মমিনুর রহমান মামুনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *