বিবিসির প্রতিবেদন: উদ্বিগ্ন আল-জাজিরা

অনলাইন ডেস্কঃ

সম্প্রতি বাংলাদেশের সেনাপ্রধান ও তার ভাইদের নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে কাতার-ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা। ‘অল দ্যা প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ নামের প্রতিবেদনটি প্রকাশের পরই দেশে তুমুল বিতর্কের জন্ম দেয়। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিবেদনটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে দাবি করা হয়।

এছাড়াও ইন্টারনেট থেকে প্রতিবেদনটি সরিয়ে ফেলতে হাইকোর্ট টেলিকম কর্তৃপক্ষকে আদেশ দিয়েছে। প্রতিবেদনটি ঘিরে বিভিন্ন প্রশ্ন নিয়ে বিবিসি’র সঙ্গে কথা বলেছেন অনুষ্ঠানের প্রযোজক উইলিয়াম থোর্ন।

বিবিসি বাংলার সঙ্গে সাক্ষাৎকারে উইলিয়াম থোর্ন বলেন, প্রতিবেদনটি প্রচারের পর বাংলাদেশে যে ধরণের আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে এবং যেভাবে তাদের ওপর চাপ তৈরির চেষ্টা হচ্ছে তা নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন। তাদের ওই প্রতিবেদনটি পেশাদার সাংবাদিকতার একটি ক্লাসিক উদাহারণ।

থোর্ন দাবি করেন, আমরা আওয়ামী লীগ বা কোনো দলকে টার্গেট করে কাজটি করিনি। বরং ব্যাপক সময় নিয়ে, প্রাপ্ত তথ্য যথাযথভাবে যাচাই-বাছাই করে এবং অকাট্য প্রামাণ্য দলিলের ভিত্তিতে ওই প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছিলো।

প্রতিবেদনে কেন প্রধানমন্ত্রীর নাম ব্যবহার করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে উইলিয়াম থোর্ন বলেন, যখন আমরা অনুসন্ধান করছিলাম তখন এই ব্যাপারটা আরো বেশি করে স্পষ্ট হয় যে এসব কিছুর মধ্যে একটা যোগসূত্র আছে। জেনারেল আজিজ তার রেকর্ড করা ফোনকলেও নিজেই ব্যাখ্যা করেছেন কিভাবে তার তিন ভাই জোসেফ, হারিস এবং আনিস এরা সবাই ৯০-এর দশকে আওয়ামী লীগকে নিরাপত্তা দিয়েছে এবং সরাসরি শেখ হাসিনার সঙ্গে কাজ করেছে।

সেই সময়টাতে ঢাকা যখন শেখ হাসিনা এবং অন্যান্য রাজনীতিকদের জন্য বিপজ্জনক ছিল, তখন তাদের নিরাপত্তা দেয়ার ব্যাপারে এই তিনজন ছিলেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায়। এবং এর পক্ষে যথেষ্ট ফটোগ্রাফিক তথ্য-প্রমাণ এবং সাক্ষীদের বক্তব্য আমাদের হাতে আছে।

তিনি বলেন, জেনারেল আহমেদের তিন ভাই যারা সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন তাদের সরাসরি যোগসূত্র ছিলো প্রধানমন্ত্রীর সাথে সেটা জেনারেল আজিজ নিজেই বলেছেন। এবং শেখ হাসিনাই জেনারেল আজিজকে সরাসরি নিজেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। সেজন্য আমার কাছে শিরোনামটি যথাযথই মনে হয়েছে।

‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনটির প্রযোজক জানিয়েছেন, যাদের সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অনুসন্ধান করা হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়াটা তাদের উদ্বিগ্ন করছে।

আল জাজিরা কেন উদ্বিগ্ন- এমন প্রশ্নের জবাবে উইলিয়াম থোর্ন বলেন, এক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে যারা কন্ট্রিবিউট করেছে তাদের বিরুদ্ধে। যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা অবশ্যই গুরুতর। এখানে যেটি গুরুত্বপূর্ণ সেটি হলো, সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা। অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসা সত্যকে চ্যালেঞ্জ করার ক্ষেত্রে এটা (আইনগত পদক্ষেপ) একটি মারাত্মক চেষ্টা।

তিনি বলেন, স্বাধীনভাবে কথা বলার অধিকার ছাড়াও যাদের কাঁধে বিষয়টি চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে তাদের পরিবারের বিষয়গুলো নিয়ে উদ্বিগ্ন তারা। এটা একেবারেই কাম্য নয়। আমাদের মনে হচ্ছে এখানে পত্রবাহকের মুখ বন্ধ করা হচ্ছে। অনুসন্ধানে যেসব তথ্য-প্রমাণ হাজির করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে কোনো কার্যকর জবাব খুঁজে বের করতে না পেরে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাকে খর্ব করা হচ্ছে।

শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যাদের নিয়োগ দিয়েছেন তাদের কারও কাজের দায়িত্ব তিনি নেবেন কেন এবং যিনি নিজেও বলছেন যে তিনি কোনো আইন ভঙ্গ করেননি, তার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নাম আসবে কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে উইলিয়াম থোর্ন বলেন, আমি বলবো এই তিন ভাইয়ের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে শেখ হাসিনা নিজে কতটুকু অবহিত, তা আমরা জানি না। তার কোনো প্রমাণও আমাদের হাতে নেই।

তবে, তিনি বলেন, জেনারেল আজিজ ‘আইনের চোখে পলাতক’ দু’জনের সাথে ষড়যন্ত্র বা যোগাযোগ করছেন, এবং তিনি হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদের সাথে যোগাযোগও করেছেন। এটা একটা সামরিক কর্মকর্তার জন্য পেশাগত অসদাচরণ।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব হচ্ছে তিনি এমন একজনকে নিয়োগ করবেন যিনি ওই পদের জন্য উপযুক্ত। এখানে শেখ হাসিনার সরাসরি দায়িত্বের ব্যাপার রয়েছে। আমার মনে হয় আমরা যথেষ্ট স্পষ্টভাবে প্রমাণ করতে পেরেছি যে জেনারেল আজিজ ২০১৫-১৬ সালে দু’জন ফেরারি আসামিকে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন, বা করার ষড়যন্ত্র করেছেন। আমাদের হাতে প্রমাণ আছে ২০১৫-১৬ সালে জেনারেল আজিজ বুদাপেস্টে হারিছ আহমেদের সাথে দেখা করেছেন। আনিস আহমেদের সাথেও তার যোগাযোগ ছিল বলে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। আর এসবই ঘটেছে ২০১৯ সালের মার্চ মাসের সাজা মওকুফের সেই বিখ্যাত ঘটনার বেশ আগে।

আল জাজিরার প্রতিবেদন প্রচারের পর আত্মপক্ষ সমর্থন করে জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, তিনি যখন তার ভাইদের সাথে দেখা করেছেন তার আগেই সরকার তার ভাইদের সব অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিয়েছে। সরকারের পক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও পরে তা নিশ্চিত করে বলেছেন যে যথাযথ আইনগত প্রক্রিয়াতেই তাদের সাজা মওকুফ করা হয়েছিলো। তাহলে আল জাজিরার প্রতিবেদনে তাদের পলাতক বলা হলো কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে প্রযোজক উইলিয়াম থোর্ন বলেন, আপনি সময়গুলো দেখুন।

আপনি দেখুন ২০১৪-২০১৫ সাল। আমাদের হাতে স্পষ্ট প্রমাণ ছিলো যে জেনারেল আজিজ হারিছ আহমেদের জন্য সার্ভিং বিজিবি কর্মকর্তাদের ব্যবহার করে ভুয়া পাসপোর্ট পেতে সহায়তা করেছেন। পুলিশের ওয়েবসাইটেও তার (আজিজ আহমেদ) ভাই তখন মোস্ট ওয়ান্টেড। যে সময় তাদের মামলা থেকে অব্যাহতির কথা বলা হচ্ছে ঘটনা তারও চার বছর আগের। জেনারেল আজিজ তার ভাইদের ভুয়া পাসপোর্ট পাওয়া ও ইউরোপে যেতে সহায়তা করেছেন। এবং বিশ্বজুড়ে যে সম্পদ তারা করেছেন সেটিও সম্ভব হয়েছে তাদের ভাই বাংলাদেশের সেনাপ্রধান হওয়ার কারণে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী ইন্টারনেট এবং মোবাইল ফোন নজরদারি করার প্রযুক্তি ইসরায়েল থেকে আমদানি করেছে। তবে এমন অভিযোগ বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সেনাবাহিনী প্রত্যাখ্যান করেছে। সেনাবাহিনী থেকে জানানো হয়েছে, জাতিসংঘের জন্য নজরদারি যন্ত্রপাতি কেনার বিষয়টি জেনারেল আজিজ আহমেদ সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব শুরুর আগেই উদ্যোগ নেয়া হয়েছিলো। তাহলে প্রতিবেদনে এর সাথে আজিজ আহমেদের নাম জড়ানো হলো কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে থোর্ন বলেন, হয়তো ক্রয় প্রক্রিয়া আগে শুরু হয়েছে, কিন্তু প্রতিবেদনে আমরা শুধু বলেছি ২০১৮ সালে জেনারেল আজিজ দায়িত্ব নেয়ার পর চুক্তিপত্রে সই হয়েছে। সুত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল।

তিনি বলেন, প্রথম কথা হলো জাতিসংঘ মিশনের জন্য এমন বিতর্কিত স্পাইওয়্যার কখনই ব্যবহার করবে না। বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদেরও তা ব্যবহার করতে দেবে না। শান্তিরক্ষা মিশনে এ ধরনের বিতর্কিত প্রযুক্তির ব্যবহার ‌স্ট্যান্ডার্ড ইস্যু না। এ নিয়ে জাতিসংঘ যেমন প্রশ্ন তুলেছে, আমরাও তুলেছি।

প্রতিবেদনটি প্রচারের পর থেকে বাংলাদেশের সরকারি দলের সমর্থকরা আল জাজিরার বিরুদ্ধে জামায়াত ঘনিষ্ঠতা ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ করে আসছে। এই অভিযোগ কতটা সত্যি জানতে চাইলে ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’এর প্রযোজক উইলিয়াম থোর্ন বলেন, আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি এ প্রতিবেদনে অনিয়মগুলো তুলে ধরা হয়েছে এবং আওয়ামী লীগ বা অন্য কোনো দলকে নিয়ে এর কোনো রাজনৈতিক লক্ষ্য ছিলো না।

তিনি বলেন, আমরা শুধু পেশাদার সাংবাদিকতা করেছি। এবং তথ্য-উপাত্তকে অনুসরণ করেছি এবং এই প্রতিবেদন এরই একটি ক্লাসিক উদাহরণ।

থোর্নের কাছে বিবিসি বাংলা জানতে চেয়েছিল, তারা যে প্রতিবেদন তৈরি করেছে সেটি কি নিয়মিত অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, নাকি বিশেষ কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী তাদের এ ধরণের আইডিয়া সরবরাহ করেছে। অর্থাৎ এটা কোনো পরিকল্পনার ফসল ছিল কি-না। জবাবে তিনি বলেন, কোনো পরিকল্পনা করে এটা করা হয়নি।

তিনি বলেন, মানুষের আগ্রহ আছে এমন বিষয়গুলো নিয়ে আমরা নিয়মিতভাবে গবেষণা করি। অনেক সময় ডকুমেন্ট, আইডিয়া ইত্যাদি লোকজন আমাদের দেয়। এই বিশেষ ক্ষেত্রে আমাদের কাছে কিছু প্রমাণাদি তুলে দেয়া হয়েছিল। সেগুলো যাচাই করে আমাদের কাছে প্রমাণগুলো খুব শক্তিশালী বলে মনে হয়েছিল। এবং আমাদের মনে হয়েছিল এগুলো নিয়ে আরো গবেষণা দরকার। গোড়াতে আমরা বাংলাদেশকে টার্গেট করে অনুসন্ধান শুরু করিনি। সেটা আমাদের লক্ষ্যও ছিলো না। কিন্তু যেসব তথ্য পেয়েছিলাম সেগুলোই আমাদের সেখানে নিয়ে গেছে।

তিনি আরো বলেন, হারিছ আহমেদকে নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছিলো হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে। কিন্তু তিনি বাংলাদেশের সেনা প্রধানের ভাই যিনি পালিয়ে ছিলেন এবং এভাবেই একটি আরেকটির সাথে উঠে এসেছে।

এটা কোনো পরিকল্পিত তদন্ত ছিলো না তবে এটি ছিলো একটি তথ্যপ্রমাণ-নির্ভর অনুসন্ধান।

ডকুমেন্টারিটি বানাতে কত অর্থ ব্যয় হয়েছে জানতে চাইলে প্রযোজক উইলিয়াম থোর্ন জানান, কি পরিমাণ অর্থ তাদের ব্যয় হয়েছে তা নিয়ে তিনি কোনো কথা বলবেন না। তবে পর্যাপ্ত সময় নিয়ে একটি নির্ভুল ও প্রমাণ-ভিত্তিক একটি প্রতিবেদন তৈরি করতে যা করা দরকার সেটিই তারা ব্যয় করেছেন।

তিনি বলেন, আমি বলতে পারি, আমরা ভাগ্যবান যে যথেষ্ট অর্থ আমাদের ছিলো অনেক সময় ব্যয় করা, তথ্য চেক করা, প্রাপ্ত তথ্য দ্বিতীয়বার যাচাই করার জন্য। তাই যা দরকার প্রতিবেদনের জন্য সেটাই আমরা ব্যয় করেছি। আমরা সাংবাদিকতা করেছি যাতে অ্যাকুরেসি নিশ্চিত করা হয়। আমরা ভাগ্যবান যে এজন্য অনেক সময় আমরা হাতে পেয়েছি।

তথ্যদাতা স্যামির প্রকৃত নাম কেন ব্যবহার করা হয়নি জানতে চাইলে অনুষ্ঠানের প্রযোজক উইলিয়াম থোর্ন বলেন, এটা তার অনুরোধেই করা হয়েছে। এটা ঠিক যে প্রতিবেদনে তাকে খুশিই মনে হয়েছে কিন্তু তার নাম দেয়া হয়নি যা কিছুটা পরস্পরবিরোধী মনে হতে পারে। কিন্তু এটা তার সিদ্ধান্ত এবং আমরা সেটাকেই শ্রদ্ধা করেছি।

ঢাকা অফিসের কারও ওপর চাপ আছে কিনা জানতে চাইলে উইলিয়াম থোর্ন বলেন, আমি এটা সরাসরি বলতে পারি না। কিন্তু আগে এ ধরনের ঘটেছে যেখানে বাংলাদেশ নিয়ে স্টোরি ফাইল করার পর ঢাকার নিউজ টিম ডিজিএফআইয়ের চাপ ও প্রশ্নের মুখে পড়েছিলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *