এক যুগেও যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা লিয়াকত ফিরে আসেন নি

বিশেষ প্রতিনিধিঃ এক যুগেও যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা লিয়াকত হোসেন ফিরে আসেন নি। ২০০৮ সালের এই দিনে ভোর রাত আনুমানিক ভোর চারটার দিকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে একদল লোক রাজধানীর লালমাটিয়া শ্বশুর বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যান, তার পর তিনি আর ফিরে আসেন নি। স্ত্রী পলিকে নিয়ে সেই বাড়িতে সেই রাতে তিনি অবস্থান করছিলেন। পরিবারের আশংকা তাকে ক্রস ফায়ার দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, মাদারিপুরের শিবচরের ভান্ডারিকান্দি গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে বীর মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকতের জন্ম। তারা ৬ ভাই এক বোন।বাবা সরকারি চাকুরীজিবী ছিলেন।চাচা প্রখ্যাত সাংবাদিক ও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর ছিলেন।

স্বাধীনতার পরে দেশে ফিরে এরশাদ শাসনের আমল পর্যন্ত টানা দুই দশক লিয়াকত ছাত্রলীগকে সংগঠিত করেন। পরে লিয়াকত হোসেন যুবলীগের হাল ধরেন।উভয় সংগঠনে দেশ ব্যাপী লিয়াকত খুব জনপ্রিয় নেতা ছিলেন।লিয়াকত ছিলেন কর্মী বান্ধব নেতা, ঢাকাসহ দেশ ব্যাপি লিয়াকতের নিজস্ব কর্মীবাহিনী ছিল দেখার মতো। অন্য দিকে, দেশের রাজনীতিতে আওরঙ্গ- লিয়াকত ছিল একটি জুটি। একটি অধ্যায়। তাদের জুটি ভিত্তিক জনপ্রিয়তা ছিল লক্ষণীয়।

রাজনৈতিক কারণে লিয়াকত হোসেন জীবনে বহুবার জেল খেটেছেন।২০০১ এর বিএনপি সরকার লিয়াকত হোসেনকে শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসাবে ঘোষণা দেয়। তার পর থেকেই লিয়াকত ফেরারি হয়ে যান।পরে দেশে ফিরে আসলে নিজ বাড়ি থেকে তিনি অপহৃত হন। সেই থেকেই লিয়াকত আজও নিখোঁজ।

ছোট ভাই নান্নু নিজ গ্রামে কয়েক দফায় ইউপি চেয়ারম্যান হয়েছেন, আরেক ভাই হান্নান যুবলীগের বিদায়ী কমিটিতে কেন্দ্রীয় সদস্য ছিলেন। বোন পারুল আখতার যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *