যুবদল নেতাকে নিয়ে গঠিত খুলনার সুরখালি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ কমিটি যেভাবে বাতিল হল

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

অবশেষে যুবদল নেতার নেতৃত্বে খুলনা বটিয়াঘাটার উপজেলার সুরখালি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নতুন আহবায়ক কমিটি স্থগিত হয়েছে। কমিটি বাতিলের ঘটনায় স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে দলের স্থানীয় মাঠ পর্যায়ের নেতা কর্মীরা। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হোসেন এই স্থগিতের কথা অন লাইন নিউজ পোর্টালের কাছে নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, গত শনিবার বিকেলে বটিয়াঘাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের এক সভায় আগের কমিটি বিলুপ্ত করে যুবদল নেতা মোতাহার হোসেন শিমুকে আহবায়ক, বাবু রবীন্দ্র নাথ সরকার যুগ্ম আহবায়ক এবং প্রসাদ চন্দ্র রায়কে সদস্য সচিব করে সুরখালি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কমিটি ঘোষণা দেয়। নতুন কমিটি করার কথা প্রকাশ হয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গনমাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। বটিয়াঘাটা থেকে শুরু করে খুলনা জেলা আওয়ামীলীগ হয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ পর্যন্ত সারা দিন দৌড়ঝাঁপ চলে। একপক্ষ অবস্থান নেয় নতুন কমিটি বহাল রাখতে, অন্য পক্ষ নতুন কমিটি বাতিলের চেষ্টা চালায়। ফেসবুকেও নতুন কমিটির বিপক্ষে প্রচন্ড জনমত সৃষ্টি হয়। দলের ত্যাগী নেতা কর্মীরা ক্ষোভে ফেটে পড়ে। বিষয়টি ভাইরাল হয়ে একপর্যায়ে টক অব দ্যা খুলনা হয়ে যায়।
জানা গেছে, খুলনার একজন এমপি ঘটনার গুরুত্ব অনুধাবন করে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হোসেনকে অভিযোগ আকারে জানান। দুই নেতাই এমপির অভিযোগকে আমলে নিয়ে বিষয়টির যৌক্তিক সমাধানের আশ্বাস দিলে নতুন আহবায়ক কমিটির বিদায় ঘন্টা বেজে উঠে। যুবদল নেতা আওয়ামীলীগে ইউনিয়ন কমিটির আহবায়ক হয়েছেন শুনে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের খুবই রিয়াক্ট করেন, তিনি কমিটি স্থগিত করে সাথে সাথে সাংগঠনিক সম্পাদককে ব্যবস্থা নিতে বলেন। প্রাপ্ত সুত্রগুলি বলেছে, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল খুলনা জেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদককে কমিটি স্থগিত করে আগের কমিটি বহাল রাখার সিদ্ধান্ত জানালে তবেই বটিয়াঘাটা তথা খুলনায় স্বস্তি ফিরে আসে।
অভিযোগ মতে নব ঘোষিত আহবায়ক শিমু বটিয়াঘাটা উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। সেই কমিটি আজও বিলুপ্ত হয়নি। শিমুর আম্মা শাহিদা বেগম উপজেলা বিএনপির মহিলা সম্পাদক। শিমুর আপন মামা গাজি তফসির আহমেদ খুলনা জেলা বিএনপির সহ সভাপতি। ৮০ র দশক থেকেই এই পরিবার আদর্শিকভাবেই বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত।
প্রথম সময়ের সাথে আলাপকালে বিএম মোজাম্মেল হোসেন রোববার সন্ধ্যায় জানান, করোনাকাল চলছে। রাজনৈতিক সমস্ত এক্টিভিটিস বন্ধ আছে। ওরা এখন কমিটি করতে পারে না। তিনি জানান, কিছু একটা তো হয়েছেই, না হলে যুবদলের নেতা আওয়ামীলীগের কমিটিতে এসে আহবায়ক হবে কেন? এসব নিয়ে আর কথা না বলি। তিনি জানান, আগের কমিটি বহাল, নতুন কমিটি বাতিল।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড সুজিত অধিকারী প্রথম সময়কে রোববার রাতে জানান, কমিটি হবার পরে জনমতকে শ্রদ্ধা জানিয়ে দলের নেতা কর্মীদের আবেগকে মুল্যায়ন করে কেন্দ্র সিদ্ধান্ত দিয়েছে, আমরাও সেটাই বাস্তবায়ন করেছি। রোববার রাতে খুলনা জেলা সভাপতি দলের একাধিক নেতাদের নিয়ে নিজ বাসভবনে বৈঠক করে দপ্তর সম্পাদককে প্রেস রিলিজ দিলে কমিটি বাতিলের ২৪ ঘন্টার উদ্বেগের অবসান ঘটে।
খুলনার স্থানীয় সাংবাদিকদের জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদ জানিয়েছেন, নতুন কমিটিতে ঝামেলা হয়েছে, তাই স্থগিত করা হয়েছে। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগকে সিদ্ধান্ত দিতে বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *