এমপিকে নিয়ে অপপ্রচার চলছে, ও অনেক ভাল কাজ করছেঃ শারমিন সালাম

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

এমপিকে নিয়ে অপপ্রচার চলছে, ও অনেক ভাল কাজ করছে, কিন্তু নেগেটিভ নিউজ আসতেছে, আমাদেরকে সমাজে ছোট করা হচ্ছে, হেয় করা হচ্ছে। এমনভাবেই অনেকটা অভিযোগের সুরে এসব কথা বললেন খুলনা- ৪ আসনের এমপির স্ত্রী মিসেস শারমিন সালাম। স্বভাবতই মন ভেঙ্গে যায় আমাদের।

অন লাইন ডেইলি নিউজ পোর্টাল প্রথম সময়ের সাথে আলাপকালে দেশের বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্তা, সমাজসেবী শারমিন সালাম এসব কথা বলেন। আলাপকালে ঘুরে ফিরেই রাজনৈতিক বিষয়ে আলাপে অনীহা প্রকাশ করে তিনি বলেন, এমপি সাহেব রাজনীতি করেন, উনি এলাকার রাজনীতি নিয়ে কথা বলেন, আমি আছি মানব সেবা নিয়ে। এলাকার এমপির স্ত্রী তথা নির্বাচনী এলাকার ভাবি হিসাবে যতোটুকু পারি, তাকে (এমপিকে) সাহায্য করছি, এলাকাবাসীর জন্য কিছু করছি, কিছু করতে চেষ্টা করছি।


রাজধানীর পান্থপথে এনভয় টাওয়ারে নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে রোববার এই
প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।
শারমিন সালাম। বিত্তশালী ব্যাংকার পরিবারের মেয়ে। উচ্চ শিক্ষিত মহিলা। ঢাকা ভার্সিটি থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স করেছেন। পুরানো ঢাকাতে শৈশব, কৈশোর কাটিয়ে অবশেষে ৯০ তে তৎকালীন সদ্য বিদায়ী ফুটবল তারকা কাম গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সালাম মুর্শিদীর সাথে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

দাম্পত্য জীবনের টানা তিন দশকেরও বেশি লম্বা জার্নিতে দুজনার সংসারে আজ দুই ছেলে, এক মেয়েকে নিয়ে তিন সন্তান ঘর আলোকিত করেছে। বড় মেয়ে, জামাই দুইজনাই ব্যারিস্টার, ছোট দুই সন্তান এখনও পড়াশুনায় অধ্যায়নরত। অফিস, ব্যবসা, খুলনায় স্বামীর নির্বাচনী এলাকাতে সময় দেবার পরে আদরের ছোট নাতনীকে নিয়ে সময় কাটে তার।

সালাম মুর্শিদীর স্ত্রী হবার সুবাদে এলাকাবাসীর ভাবি হিসাবে ইতমধ্যেই তিনি সবার নজর কেড়েছেন। এলাকায় একাধিক বড় বড় নারী সমাবেশ সফলভাবে সম্পন্ন করে তিনি আলোচিত, প্রশংসিত। খুলনা থেকে কেন্দ্র কিংবা দলের হাই কমান্ডেও তিনি সমাদৃত। সালাম মুর্শিদীর মতোই তিনি এলাকাতে সমধিক পরিচিত। একজন দানবীর মহিলা হিসাবেও তিনি সমাজে স্বীকৃত, প্রশংসিত।
ব্যক্তিত্ব, মার্জিত আচরন, সদা হাসি-খুশি, মিশুক স্বভাবের কারণে তার স্বামীর নির্বাচনী এলাকা তথা খুলনাবাসীর মাঝে বেশ জনপ্রিয়তা বিদ্যমান।

দল বা দলের বাইরেও সবাই তাকে যথেষ্ট সমীহ করে চলে। ব্যক্তিগত জীবনে প্রচন্ড পর্দানশীল মহিলা, নিয়মিত নামাজ পড়েন এমনকি আধুনিক ঢাকার মেয়ে হয়েও কোনও আধুনিকতা নেই। সহজ সরল জীবনে তিনি জীবন পাড়ি দিয়েছেন, দিচ্ছেন। বাসায় প্রতি সপ্তাহে আল কোরআনের তাফসীর মাহফিল করেন। ছোট ছেলেকে হাফেজি পড়াচ্ছেন। ইতমধ্যেই ২২ পারা হাফেজি সম্পন্ন হয়েছে তার ছেলের।

আলাপকালে গ্রুপ অব বিজনেস পরিবার তথা এনভয় গ্রুপের পরিচালক এর পাশাপাশি সালাম মুর্শিদীর নিজস্ব বিজনেস গ্রুপের চেয়ারম্যান শারমিন সালাম সরাসরি স্বীকার করেন, ও (এমপি) রাজনীতিতে নতুন, চলার পথে কিছু ভুল ত্রুটি হতেই পারে, আমরাও মানুষকে খুব বিশ্বাস করি। করে আসছি। কেউ ভাল সাজেশন দিয়েছেন, কেউবা এক্সপ্লয়েট করেছে্ন। তবে এখন ও অনেক পরিণত। বলা যায় ধাক্কা খেতে খেতে শিখছে।
দেশের ধনাঢ্য এই নারী ব্যবসায়ী খুলনাতে তাদের সেবা সংঘ সম্পর্কে বলেন, এটা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত অর্থায়নে চলছে। তিনি নিজেই তার ব্যক্তিগত অর্থদিয়ে সেবা সংঘের মাধ্যমে এলাকাবাসীর পাশে দাড়িয়েছেন।


এর সাথে দলের সম্পর্ক নেই। দল বা এমপির কাছ থেকে কোনও অর্থ বা সহযোগিতা নেয়া হয় না।
নিজেকে মাদার অব হিউমিনিটি দাবি করা প্রসঙ্গে তিনি জানান, এটা কেউ কেউ আবেগে তাকে (শারমিন সালাম) এড্রেস করেছে। এর মধ্যেই সবাইকে বলা হয়েছে এমনভাবে এড্রেস না করার জন্য। এমপি সালামের চেয়র তিনি বেশি জনপ্রিয় কিনা এমন প্রশ্নে তিনি জানান, সালাম এমপি, তার সুবাদেই আমি সেখানে কাজ করতেছি, তার চেয়ে আমি জনপ্রিয় হই কিভাবে? সে মেবি নানা কাজে ব্যস্ত থাকে, তুলনামুলকভাবে আমার ব্যস্ততা ওর চাইতে অনেক কম, তাই ওর এলাকার লোকজনকে তাদের ছেলের বউ হিসাবে সময় দেই, শ্বশুর বাড়ির এলাকার লোকজন হয়তোবা আমায় তাদের ছেলের চেয়ে বেশিই ভালবাসে। এটা আমার বউ হিসাবে পরম সৌভাগ্য।

শারমিন সালাম আলাপকালে বলেন, সহজ, সরল, ভদ্র লোকদের জন্য রাজনীতি, কালচার ক্রমেই উঠে যাচ্ছে। রাজনৈতিক প্যাঁচ গোছ না থাকলে খুলনা- ৪ আসনের জন্য আরও বেশি বেশি কাজ করতে পারতাম, সামাজিকভাবে অবদান রাখতে পারতাম। সরাসরি রাজনীতিতে তিনি সক্রিয় হবেন, এমন গুঞ্জন প্রসঙ্গে শারমিন সালাম বলেন, খুলনা তথা দক্ষিণবঙ্গের রাজনীতি শেখ পরিবার দেখে। বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র শেখ হেলাল এমপি আমাদের মুরুব্বি। তিনি চাইলে আর সালাম অনুমতি দিলে সরাসরি রাজনীতি করতে পারি। তাছাড়া, দলে দায়িত্ব দিলেও আছি না দিলেও আচ্ছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আমার প্রিয় একজন মানুষ।

একজন নারী হিসাবে তার জন্য প্রাউড ফিল করি। তিনি নারীজাতি তথা দেশের জন্য অনেক করেছেন, করছেন। আমিও তার আদর্শের একজন কর্মী হিসাবে চেষ্টা করছি। তাছাড়া, সালামের সহধর্মিণী হিসাবে খুলনা- ৪ আসন আমার মনে, প্রানে, ধ্যানে, রাজনীতিতে মিশে গেছে। রুপসা- দিঘলিয়া- তেরখাদা আমার আরেক পরিবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *