সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের ঘটনায় উদ্বেগ-ক্ষোভ

অনলাইন ডেস্কঃ

সাংবাদিকদের প্রতিনিধিত্বশীল ছয়টি সংগঠনের ১১ জন শীর্ষস্থানীয় নেতার ব্যাংক হিসাব তলব এবং তা ফলাও করে প্রচারের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে দেশের বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন। আজ মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) পৃথক সভা ও বিবৃতিতে এই উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, কোনো ব্যক্তিবিশেষের ব্যক্তিগত দুর্নীতি বা অপরাধের সুনির্দিষ্ট অভিযোগের তদন্ত ও বিচার হতেই পারে। কিন্তু একটি বিশেষ পেশার সব সংগঠনের নির্বাচিত শীর্ষস্থানীয় নেতাদের নামে ঢালাও এই সিদ্ধান্ত বিশেষ উদ্দেশ্যমূলক। বিষয়টি কিছুটা যুক্তিসংগত হতো, যদি পেশাজীবী সব সংগঠনের সব নির্বাচিত নেতার নামেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হতো। কিন্তু তা না করে শুধু সাংবাদিক নেতাদের নামে এই সিদ্ধান্ত সুস্থ সাংবাদিকতার প্রতি হুমকির শামিল। সাংবাদিকদের চাপে রাখতে দেশের কেন্দ্রীয় আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থার এই সিদ্ধান্ত।
সাংবাদিক সংগঠনগুলো অবিলম্বে এ ধরনের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তৎপরতা বন্ধ করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

সাংবাদিকদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) দুই অংশের নেতারা, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) দুই অংশের নেতারা, জাতীয় প্রেস ক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটি, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) নির্বাহী কমিটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুলের সভাপতিত্বে আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সভায় সংগঠনটির কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, বিএফইউজের দপ্তর সম্পাদক বরুণ ভৌমিক নয়ন, সদস্য নূরে জান্নাত আখতার সীমা, সেবিকা রানী, খায়রুজ্জামান কামাল প্রমুখ বক্তব্য দেন।
মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ‘গণমাধ্যমবান্ধব প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের সঙ্গে সাংবাদিকদের দূরত্ব সৃষ্টি করতে কোনো বিশেষ মহলের পরিকল্পনায় বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের এই সিদ্ধান্ত। বিএফইউজে সাংবাদিক সমাজকে হেয় প্রতিপন্নকারী এই ঢালাও সিদ্ধান্ত অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছে।’ তিনি হুমকি, চক্রান্ত প্রতিহত করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অবিচল থেকে সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আরেক সভায় বিএফইউজে নেতারা এ বিষয়ে বক্তব্য দেন।

শওকত মাহমুদ বলেন, ‘গণমাধ্যম এখন অত্যন্ত কঠিন সময় পার করছে। সাংবাদিকদের স্বার্থ রক্ষা ও অধিকার আদায়ে সংগ্রামরত সাংবাদিক সংগঠনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং শীর্ষ নেতাদের হেয় করার মাধ্যমে স্বাধীন সাংবাদিকতার ওপর নতুন করে চাপ সৃষ্টি করাই এই ব্যাংক হিসাব তলবের লক্ষ্য।’ তিনি অবিলম্বে এ ধরনের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তত্পরতা বন্ধ করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় সংগঠনটির সহসভাপতি মোদাব্বের হোসেন, সহসভাপতি রাশিদুল ইসলাম, সহকারী মহাসচিব শফিউল আলম দোলন, সাংগঠনিক সম্পাদক খুরশিদ আলম, প্রচার সম্পাদক মাহমুদ হাসান, নির্বাহী সদস্য জাকির হোসেন প্রমুখ অংশ নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *