শুভ জন্মদিন শ্রদ্ধেয় আপা

অনলাইন ডেস্কঃ

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আজ জন্মদিন। ১৯৪৭ সালে ২৮ সেপ্টেম্বর টুঙ্গিপাড়ায় তাঁর জন্ম হয়। পিতা শেখ মুজিব, মাতা ফজিলাতুননেছা রেণুর স্নেহ-আশীর্বাদ নিয়ে গ্রামের সবুজ প্রকৃতির মাঝে তার শৈশব কাটে।

শেখ হাসিনার সঙ্গে আমার প্রথম দেখা ও পরিচয় হয় সুধাসদনে ১৯৯২-১৯৯৩ সালের কমার্স কলেজ ছাত্রসংসদ নির্বাচনের সময়। তারপর টুঙ্গিপাড়ায় তার নিজস্ব বাড়িততে দেখা করতে গেলে মাতৃস্নেহে জাম, জামরুল, খেতে দিয়েছিলেন। ২০১০ সালে দিল্লী সফরের স্মৃতি সহ অসংখ্যবার তার সাথে দেখা হয়েছে কথা হয়েছে।

শত বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন জননেত্রী, দেশরত্ন শেখ হাসিনা। হত্যার হুমকিসহ নানা প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা করে।বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে শেখ হাসিনা ভাত-ভোট এবং সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ের জন্য অবিচল থেকে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন।

তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের জনগণ অর্জন করেছে গণতন্ত্র ও বাক-স্বাধীনতা। বাংলাদেশ পেয়েছে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা। শেখ হাসিনার অপরিসীম আত্মত্যাগের ফলেই বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশকে একটি রোল মডেল হিসেবে পরিচিত করেছেন। এ দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি আজ বিশ্ববাসীর কাছে এক বিস্ময়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগ্য উত্তরসুরী হিসেবে জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা তার সততা, আত্মত্যাগ, দূরদর্শীতা ও দেশপ্রেমের উজ্জ্বল স্বাক্ষর রাখছেন। বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশে রুপান্তার করা সহ বাংলার মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।

জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি। একটাই চাওয়া জননেত্রীর নেতৃত্বে যেনো আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে পারি।

লেখকঃ অসিত বরণ বিশ্বাস,সাবেক সহসভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *